Ekattor Kantho Logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
শিরোনাম
চার সমুদ্রবন্দরে সংকেত ৩, সারাদেশে বৃষ্টির সম্ভাবনা সৌদি প্রবাসীদের জন্য চলতি মাসেই বিমানের বিশেষ ফ্লাইট ভোলায় ইয়াবা ট্যাবলেটসহ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ভোলায় বাংলাদেশ মানব কল্যাণ ফাউন্ডেশন (বিএমএফ)'র বৃক্ষরোপন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত। পাপুল কুয়েতের নাগরিক হলে এমপি পদ বাতিল: প্রধানমন্ত্রী দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৪৮৯ জনের করোনা শনাক্ত ভোলার ৬কেজি মাদকদ্রব্য গাজা সহ এক বৃদ্ধ মহিলা গ্রেফতার কালিশুরী-ধূলিয়া ব্রীজের দুই পাশের সংযোগ সড়ক মরণ ফাঁদে পরিনত ভোলায় ২ বছরের শিশুকে হত্যার অভিযোগে গ্রেপ্তার মা সাংবাদিক আজাদের বিরুদ্ধে দৈনিক সময়ের আলো পত্রিকায় মিথ্যা সংবাদ প্রকাশের প্রতিবাদে দৌলতখানে মানববন্ধন

২০৩০ সালের মধ্যে ভারতকে ছাড়িয়ে যাবে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয়


অনলাইন ডেস্ক

আপডেট সময়: ১৪ মে ২০১৯ ৯:৩৭ পিএম:
২০৩০ সালের মধ্যে ভারতকে ছাড়িয়ে যাবে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয়

২০৩০ সালের মধ্যে মাথাপিছু আয়ে ভারতকে ছাড়িয়ে যাবে বাংলাদেশ। এ সময় বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় দাঁড়াবে পাঁচ হাজার ৭০০ ডলার। আর ভারতের মাথাপিছু আয় হবে পাঁচ হাজার ৪০০ ডলার।

বহুজাতিক স্টান্ডার্ড চার্টার্ড (স্ট্যানচার্ট) ব্যাংকের সাম্প্রতিক এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। স্ট্যানচার্টের প্রধান অর্থনীতিবিদ ডেভিড ম্যান ও ব্যাংকের ভারতীয় গবেষণা শাখার প্রধান মধুর ঝা এ গবেষণা পরিচালনা করেছেন।

গবেষণায় বলা হয়েছে, ২০২০ সাল হবে এশিয়ানদের যুগ। পুরো দশক ধরে এশিয়ার দেশগুলোর প্রবৃদ্ধি ৭ শতাংশ বজায় থাকবে। বিশেষ করে বাংলাদেশ, ভারত, ভিয়েতনাম, মিয়ানমার ও ফিলিপাইনে প্রবৃদ্ধির ধারা অব্যাহত থাকবে।

২০৩০ সালে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোয় অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ঘটবে। তখন পৃথিবীর মোট জনসংখ্যার এক পঞ্চমাংশই হবে এশিয়ার। এর সুফল ভোগ করবে দেশগুলো। ভারতের বিশাল জনসংখ্যা দেশটির জন্য আশীর্বাদ বয়ে আনবে। আর বাংলাদেশ স্বাস্থ্য ও শিক্ষা খাতে এত দিন যে বিনিয়োগ করেছে, তার সুফল পাওয়া শুরু করবে। এতে বাংলাদেশের উৎপাদনশীলতা বাড়বে।

গবেষণায় বলা হয়, বর্তমানে বাংলাদেশের মাথা পিছু আয় এক হাজার ৬০০ ডলার। ২০৩০ সালে এটি বেড়ে দাঁড়াবে পাঁচ হাজার ৭০০ ডলারে। অন্যদিকে বর্তমানে ভারতের মাথাপিছু আয় হচ্ছে এক হাজার ৯০০ ডলার। ২০৩০ সালে তা পাঁচ হাজার ৪০০ ডলারে উন্নীত হবে। অর্থাৎ মাথাপিছু আয়ে ভারত থেকে ৩০০ ডলার এগিয়ে থাকবে বাংলাদেশ।

গবেষণায় বলা হয়েছে, ২০১০ সাল থেকে এশিয়ার দেশগুলোয় পরিবর্তন ঘটতে শুরু করে। আর তখন থেকেই ব্যাংকটি এশিয়ার দেশগুলোর অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির দিকে নজর রাখা শুরু করে।

গবেষক ডেভিড ম্যান ও মধুর ঝা বলেন, দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির কারণে দেশগুলোতে আয় বৈষম্য, অপরাধ ও দূষণ রোধে ইতিবাচক পরিবর্তন ঘটবে। দ্রুত প্রবৃদ্ধি লোকজনকে চরম দারিদ্র্য থেকে বের করে আনার পাশাপাশি স্বাস্থ্য ও শিক্ষাতে ইতিবাচক পরিবর্তন আনে। এর আরেকটি উপকারী দিক হলো, আয় বেড়ে যাওয়ার কারণে এসব দেশে সামাজিক ও রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা কমে আসে। এতে নানা ধরনের সংস্কারকাজও সহজে বাস্তবায়ন করা যায়।


আপনার মন্তব্য লিখুন...

সত্য প্রকাশে নির্ভীককণ্ঠ
Top