Ekattor Kantho Logo
About Us | Contuct Us | Privacy Policy
শিরোনাম
চার সমুদ্রবন্দরে সংকেত ৩, সারাদেশে বৃষ্টির সম্ভাবনা সৌদি প্রবাসীদের জন্য চলতি মাসেই বিমানের বিশেষ ফ্লাইট ভোলায় ইয়াবা ট্যাবলেটসহ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ভোলায় বাংলাদেশ মানব কল্যাণ ফাউন্ডেশন (বিএমএফ)'র বৃক্ষরোপন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত। পাপুল কুয়েতের নাগরিক হলে এমপি পদ বাতিল: প্রধানমন্ত্রী দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৪৮৯ জনের করোনা শনাক্ত ভোলার ৬কেজি মাদকদ্রব্য গাজা সহ এক বৃদ্ধ মহিলা গ্রেফতার কালিশুরী-ধূলিয়া ব্রীজের দুই পাশের সংযোগ সড়ক মরণ ফাঁদে পরিনত ভোলায় ২ বছরের শিশুকে হত্যার অভিযোগে গ্রেপ্তার মা সাংবাদিক আজাদের বিরুদ্ধে দৈনিক সময়ের আলো পত্রিকায় মিথ্যা সংবাদ প্রকাশের প্রতিবাদে দৌলতখানে মানববন্ধন

গুড বাই বলার সময় এসেছে মাশরাফির


একাত্তর কন্ঠ

আপডেট সময়: ৩ জুলাই ২০১৯ ৯:৩০ পিএম:
গুড বাই বলার সময় এসেছে মাশরাফির

শাহীন কামাল : কথাটা বেশ পুরোনো " জয় থাকতে কীর্তন দেয়া"। আমার এক সিনিয়র বলেন, কথাটা আসলে এমন হওয়া উচিৎ, জয় থাকতে কীর্তন বন্ধ করা। এটা এ কারনে, যাতে দর্শক শ্রোতার কাছে ঐ শিল্পী অপাংক্তেয় হয়ে না যায়। গুণী ও প্রতিভাবান শিল্পীর কদর আর সম্মান যেন টিকে থাকে। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মূর্তজার প্রতি মানুষের ভালবাসা আর শ্রদ্ধার মাত্রা শুন্যের কোঠায় না পৌছাতে স্বসম্মানে বিদায় নেয়া দরকার।

ক্রিকেট ২২ গজে ১১ জনের খেলা। খেলোয়াড়েরা দুই দলে বিভক্ত। অর্থাৎ বোলার আর ব্যাটসম্যান ছাড়া অন্য কোনো যোগ্যতায় এই ১১ জনের মধ্যে জায়গা পাওয়ার সুযোগ নেই। কেউ যদি উভয় যোগ্যতা প্রদর্শনে পারদর্শী হন, তবে তার অবস্থান আরো সুদৃঢ় হয়। ফিল্ডিং, কিপিং এমন কী দল পরিচালনার মত যোগ্যতা বিচার করার আগে তাকে বোলার কিংবা ব্যাটসম্যান হিসেবে পারদর্শী হতে হয়।

বাংলাদেশের ক্রিকেট আজকে যে এই সম্মানজনক আর পাকাপোক্ত স্থানে আছে তা অনেক পুরনো নয়। আজ যেই ইন্ডিয়াকে হারানোর সাহস দেখাই, না হারাতে পারলে হতাশ হই, তাদের সাথে নিত্য ৯ উইকেটে হারার কথা অনেকেরই মনে থাকতে পারে। সেই অবস্থানে এখন আমরা নেই। একজন মেহরাব হোসেন অপির ঘাম ঝড়ানো ১০২ রানের সেঞ্চুরি আমরা সাবলীলভাবে প্রতি ম্যাচে আশা করি। একাধিক সেঞ্চুরির স্বপ্নে বিভোর হই। শত রান ছাড়িয়ে একজন খেলোয়াড় আরো কতদূর যাবে, সেই হিসেব কষি। পরম নির্ভরযোগ্য টেষ্ট প্লেয়ার খ্যাত জাবেদ ওমর বেলিমের মত কাউকে স্লো ব্যাট চালাতে দেখলে হতাশ হই।

মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুর থেকে সম্মানের সাথে যাত্রা করা বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের বর্তমান স্তরে পৌছাতে বর্তমান অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার অবদান অনস্বীকার্য। নড়াইল এক্সপ্রেস খ্যাত বাংলাদেশ দলের তৎকালীন দ্রুততম বোলার সময়ের পরিক্রমায় নিজের মেধা, মনন আর যোগ্যতায় দলের নির্ভরতার প্রতীক আর পরবর্তীতে দলের কান্ডারী হয়ে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে। পায়ে অনেকগুলো অপারেশন পরবর্তীতে দলের জন্য জানবাজী রেখে বল করার সুচনা করছে। কিন্তু ফলাফল কি হচ্ছে? বর্তমান একটি সুসজ্জিত দলের প্রধান বোলার যদি পুরো টুর্নামেন্টে একটামাত্র উইকেট পায়, তবে তার করা এই দশ ওভার বলে দল যে পরিমান বিপর্যয়ের সম্মুখীন হচ্ছে, তা পুষিয়ে নেবে কোন পথে! ক্রিকেট অনিশ্চয়তার খেলা। একজন খেলোয়াড় যে প্রতিদিন ভাল করবে এমনটা আশা করা অন্যায়। কিন্তু দলের প্রধান বোলার যদি প্রতিদিনই ব্যার্থ হয়, তবে তো আলোচনা আসবেই। একটা সময় ছিল ব্যাট হাতে মাশরাফি ঝলসে উঠবেই। যতক্ষণ ক্রিজে থাকবে রানের চাকাকে প্রচন্ডভাবেই ঘুরাবে। অন্য খেলোয়াড়েরা এখন ব্যাটে বলে সমান তালে নিজেকে প্রকাশ করে, মাশরাফিকে তখন একেবারেই শূন্য হাতে ফিরে আসতে হচ্ছে।

পুরো বিশ্বকাপ মিশনে বোলাদের কারনেই বাংলাদেশ দল সফলতা পায়নি প্রত্যাশানুযায়ী। এক্ষেত্রে ব্যাটসম্যানরা নিজেদের তুলে ধরতে সফল হয়েছে৷ ইন্ডিয়ার সাথে চরম উত্তেজনাপূর্ণ খেলায় বোলারদের কারনে রানের পাহাড় চেপেছে, যা মাড়ানো অসম্ভব হয়ে পরে। এমন এক গুরুত্বপূর্ন ম্যাচে দেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বোলার দিয়ে দশ ওভার বল করাতে পারেনি দল। অথচ একজন অনিয়ম বোলার দিয়ে তার চেয়ে বেশি বল করিয়েছে।

বাংলাদেশ দলকে মাশরাফি অনেক দিয়েছে। পেয়েছেও অনেক। অর্থ, সম্মান আর ভালবাসায় দেশবাসীও উজাড় করে দিয়েছে তাকে। ২২ গজ থেকে তুলে এনে রাষ্ট্রের নীতিনির্ধারণী সদস্য করেছে। প্রয়োজনে ক্রিকেট পরিচালনা আর উন্নয়নে ভুমিকা রাখতে তাকে দায়িত্ব দেয়া যেতে পারে। তবুও নতুনকে জায়গা দেয়ার সময় এসেছে তার। আমরা যেন ভুলে না যাই একজন তথাকথিত বেয়াদব ২২ গজের কারিশমায় সকলের ভালবাসায় সিক্ত, যেখানে নম্র ভদ্র মানুষটি মাঠে ব্যার্থ হয়ে মানুষের মনে থাকবে, এটা আশা করব কিভাবে?

০৩ জুলাই ১৯

(ফেইসবুক থেকে সংগৃহীত)

একাত্তর কন্ঠ 


আপনার মন্তব্য লিখুন...

সত্য প্রকাশে নির্ভীককণ্ঠ
Top